Home » গাংনীর এসএম প্লাজায় হামলার ঘটনায় ৩ আসামী জেল হাজতে

গাংনীর এসএম প্লাজায় হামলার ঘটনায় ৩ আসামী জেল হাজতে

কর্তৃক মেহেরপুর রিপোর্ট
135 ভিউজ

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা শহরের এসএম প্লাজায় গাংনী বাজার কমিটির সাবেক সভাপতি হাফিজুর রহমান মানিক ও তার ছেলেসহ ৩ জনের উপর নৃশংসতার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার ৩জন আসামীকে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন আদালত।

সােমবার মেহেরপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট (প্রথম) আদালত তাদের জামিন আবেদন না মঞ্ছুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

জানা গেছে, গত ২৯ মে দুপুরে ব্যবসায়ি হেলাল ও তার লোকজন এক দোকান কর্মচারীকে নির্যাতন করলে, বাজার কমিটির সাবেক সভাপতি হাফিজুর রহমান মানিক প্রতিবাদ করেন। এতে রাগান্বিত হয়ে ব্যবসায়ি হেলাল ও তার ভাই বেলাল এবং ভাতিজা সাবরি ধারালো চাপাতি দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে মানিককে। এসময় মানিককে বাঁচাতে এসে আহত হন মানিকের ছেলে সোহান ও ব্যবসায়ি স্বপন । এসএম প্লাজার অন্যান্য ব্যবসায়িরা জোটবদ্ধ ভাবে এগিয়ে আসলে,হেলাল ও তার ভাই বেলাল এবং ভাতিজা সাবরি পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় গাংনী থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়। যার নম্বর জিআর- ১২০/২১। আসামীরা আদালতে আত্মসমর্পনের সিদ্ধান্ত নেয় এবং সােমবার আদালতে জামিন নিতে আসলে, মেহেরপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট(প্রথম) আদালতের বিজ্ঞ বিচারক তরিকুল ইসলাম আসামীদেরকে জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠান।

এদিকে আসামীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। একজন ব্যবসায়ি হয়ে অপর ব্যবসায়ির উপর হামলা ও পাল্টা মামলা করায় সমালোচনার মুখে পড়েছেন আসামীরা।

এসএম প্লাজার ব্যবসায়ি এনামুল হক জানান, ঘটনার দিন আহতদেরকে বাঁচানোর চেষ্টা করা ও চিকিৎসায় সহযোগিতা করায় এনামুলসহ কয়েকজনের নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে হেলাল। ঘটনার দিন আহতদের নিয়েই ব্যস্ত ছিল সবাই। কেউ হামলা করেনি। এমনকি ফেসবুক লাইভে এসেও কোন হামলার কথা বলেননি আসামীরা। কোন আঘাতের চিহ্নও দেখতে পাননি দর্শকরা। হেলালদের এ মামলা প্রত্যাহারেরও দাবি জানান ব্যবসায়ীরা।

0 মন্তব্য
0

আরও রিলেটেড পোস্ট

মতামত দিন